সোম. জুন ১৭, ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক |

খুলনায় ১৫ আগস্টের শহীদদের নিয়ে ব্যতিক্রমী দেয়ালচিত্র দেখতে অনেকেই আসছেন।

নগরীতে মানুষের নজর কাড়ছে ব্যতিক্রমী দেয়ালচিত্র। শিববাড়ি মোড় থেকে রেলস্টেশন পর্যন্ত খুলনা-যশোর মহাসড়কের পূর্ব পাশের রেলওয়ের দেয়ালে ব্যতিক্রমী চিত্র আঁকা হচ্ছে। জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে  খুলনা মহানগর যুবলীগের উদ্যোগে এ দেয়ালচিত্র আঁকা হয়েছে। এতে রঙ তুলির পাশাপাশি ডিজিটাল প্যানাফ্লেক্সের সাহায্য নেওয়া হয়েছে। ১৫ আগস্টের শহীদদের নিয়ে এই ব্যতিক্রমী দেয়ালচিত্র দেখতে অনেকেই আসছেন।
জানা গেছে, সোয়া কিলোমিটার স্থান জুড়ে এ দেয়ালচিত্রে স্থান পেয়েছে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট নিহত শহিদদের বড় আকৃতির ছবি ও পরিচয় তুলে ধরা হয়েছে। আরেকটি অংশে তুলে ধরা হয়েছে ১৯৫২ থেকে ১৯৭৫ সাল পর্যন্ত বঙ্গবন্ধুর বিভিন্ন প্রতিকৃতি। জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে খুলনা মহানগর যুবলীগের উদ্যোগে এসব দেয়ালচিত্র স্থাপন করা হয়

খুলনা মহানগর যুবলীগের যুগ্ম-আহবায়ক শেখ শাহজালাল হোসেন সুজন বলেন, মহানগর যুবলীগের দায়িত্ব গ্রহনের পর থেকে চেষ্টা করেছি জাতীয় কর্মসূচিগুলোতে কিছুটা ভিন্নতা আনার। নগরীর বিভিন্ন স্থানে যত্রতত্র প্যানা দেওয়ার কারনে পরিবেশ নষ্ট হয়। সেখান থেকে আমরা ফিরে এসেছি। দেয়াললিখন বা ওয়ালকে সুন্দরভাবে গুছিয়ে আনা আমাদের নতুন উদ্যোগ। সেই ধারাবাহিকতায় এটা করা হয়েছে। তিনি বলেন, আগস্ট মাস জাতীয় শোকের মাস। ১৫ আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ তার পরিবারের সবাই শহিদ হন। আমরা চেষ্টা করেছি এই দেয়াল লিখনের মধ্যদিয়ে প্রত্যেক শহিদকে যেন স্মরণ করতে পারি।
তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু মানেই বাংলাদেশ। আমরা এই ইতিহাসকে সামনে আনার চেষ্টা করেছি। দেয়ালচিত্রে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুসহ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সহোদর শহিদ শেখ আবু নাসের, বঙ্গবন্ধুর তিন ছেলে শেখ কামাল, শেখ জামাল ও শেখ রাসেল এবং তাদের সহধর্মিণীদের ছবিও এখানে শোভা পাচ্ছে।
নগর যুবলীগের সদস্য মশিউর রহমান সুমন বলেন, গত বছর যখন প্রথম দেয়াললিখন শুরু করেছিলাম, তরুণ সমাজের মধ্যে সেটি ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা সৃষ্টি করেছিল। এই পরিবারটি সম্পর্কে তারা শিখতে ও জানতে আগ্রহী হয়েছিল। এই পরিবারের রাজনীতি এবং তারা যে আত্মত্যাগ করে গেছেন সেই সম্পর্কে তারা জেনেছে ও উদ্বুদ্ধ হয়েছে। তরুণ প্রজন্মকে আরও উদ্বুদ্ধ করার জন্য এবারও দেয়াললিখনের আয়োজন করেছি। ভালো কাজগুলো যেন সমাজের প্রত্যেকটি মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে পারি সেই দোয়া করবেন।
দেয়াল লিখনের দায়িত্বে থাকা মানজারুল ইসলাম বলেন, ১৫ আগস্টে নিহত শহিদদের স্মরণে নগর যুবলীগ এই দেয়ালচিত্র করছে। দেয়ালচিত্রটি সোয়া এক কিলোমিটার লম্বা। এটা অনেকেই দেখতে আসছেন। দু-এক দিনে আঁকা শেষ হবে।

smk

Related Post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *