জনবল সংকটে সেবা দিতে হিমশিম খাচ্ছে স্বাস্থ্যকর্মীরা

উত্তাল সংবাদ ডেস্কঃ
  • প্রকাশিত বৃহস্পতিবার, ৫ মে, ২০২২
  • ১৫

বাগেরহাট প্রতিনিধি.
বাগেরহাটে হাসপাতালে ডায়রিয়া রোগীর চাপ কমছেনা। গত এক মাসেরও বেশি সময় ধরে ডায়রিয়া রোগীর চাপ বেড়েই চলেছে। হাসপাতালে গড়ে প্রতিদিন ১৫ থেকে ৩৫ জন রোগী ভর্তি হচ্ছেন। রোগীর চাপ বেড়ে যাওয়ায় হাসপাতালে শয্যা সংখ্যা বাড়ানো হচ্ছে। জনবল সংকট থাকায় রোগীর সেবা দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে স্বাস্থ্য বিভাগকে। আবহাওয়া ও সুপেয় পানির অভাবে ডায়রিয়ায় বেশি মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে হচ্ছে বলে মনে করছে স্বাস্থ্য বিভাগ।
বৃহষ্পতিবার দুপুরে গিয়ে দেখা গেছে, বাগেরহাট সদর হাসপাতালের ছয় শয্যার ডায়রিয়া ওয়ার্ডে কোন বেড খালি নেই। এখানে আরও ১০টি বেড বাড়ানো হয়েছে। এছাড়া অন্য একটি নতুন ওযার্ড খোলা হয়েছে। শিশুসহ বিভিন্ন বয়সী রোগী হাসপাতালের বেডে শুয়ে আছে।
রোগীর স্বজন মিতা ও আসমা বেগম বলেন, ঈদের দিনে মাংস খেয়েছেন, খাবার বা পানির জন্য নয়, অতিরিক্ত গরম ও ঠান্ডায় আমার স্বামী ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন। আজ সকালে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছি। হাসপাতালের চিকিৎসকেরা প্রয়োজনীয় সেবা দিচ্ছেন। ঈদের ছুটিতে চিকিৎসকরা নেই। যারা এখানে আছেন তারা রোগীদের সেবা দিয়ে যাচ্ছেন।
নার্স নাসরিন সুলতানা বলেন, প্রতিদিন অন্তত ৩০ জন রোগী হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছেন। পানি ও অতিরিক্ত গরমের কারনে এরা আক্রান্ত হচ্ছেন। ঈদের খাবার খাওয়ার কারনে রোগীর চাপ হঠাৎ করে বেড়ে গেছে। জনবল সংকটের কারনে ১৬ শয্যার একটি ডায়রিয়া ওয়ার্ড একাই আমাকে সামাল দিতে হচ্ছে। আমি রীতিমত হিমশিম খাচ্ছি। একটু বসার সময় পাচ্ছিনা। এখানকার রোগীরা জানে আমি তাদের জন্য কি করছি। জনবল সংকটের কারনে এখানে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীর স্বজনদের দিয়ে কাজ করাতে হচ্ছে।
বাগেরহাট সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. অসীম কুমার সমাদ্দার  বলেন, গত মার্চ মাসের শেষ দিক থেকে বাগেরহাট সদর হাসপাতালে ডায়রিয়া রোগীর চাপ বাড়তে শুরু করে। প্রতিদিন গড়ে ১৫ থেকে ২৫ জন রোগী এখানে ভর্তি হচ্ছে। এই ঈদে ডায়রিয়ার প্রকোপটা আরও বেড়েছে। রোগীর চাপ বাড়তে থাকায় শিশুদের ছয় শয্যার স্থলে ১৫ শয্যা করা হয়েছে। তাতে জায়গার সংকুলান না হওয়ায় পুরুষ ও নারীদের জন্য আরও ১৬ শয্যা বাড়তি প্রস্তুত করা হয়েছে। জনবল সংকট আগে থেকেই ছিল তা আরও প্রকট আকার ধারণ করেছে। এই জনবল দিয়ে রোগীদের সেবা দিতে স্বাস্থ্যকর্মীদের রীতিমত হিমশিম খেতে হচ্ছে। জনবল সংকট থাকলেও ওই স্বাস্থ্যকর্মীরা রোগীদের সেবা দিয়ে যাচ্ছে। আবহাওয়া ও সুপেয় পানির অভাবে ডায়রিয়ায় বেশি আক্রান্ত হচ্ছে সাধারণ মানুষ। তাই সবাইকে সুপেয় পানি পান করা এবং খাবার খাওয়ার আগে অবশ্যই হাত ধুয়ে পরিস্কার পরিচ্ছন্নভাবে খাবার গ্রহণ করতে হবে। তাহলে সবাই সুস্থ্য থাকতে পারব বলে মনে করছেন এই স্বাস্থ্য কর্মকর্তা।ap

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ

সকল নিউজ সবার আগে পেতে লাইক দিন-

জনপ্রিয় পত্রিকাসমূহ