মঙ্গল. ফেব্রু ২০, ২০২৪

বাগেরহাট প্রতিনিধিঃ
বাগেরহাটে প্রথম ধাপের করোনা ভাইরাসের টিকাদান কর্মসূচি শুরু হয়েছে। রোববার সকাল সাড়ে দশটায় বাগেরহাট সদর হাসপাতালে বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক আ ন ম ফয়জুল হক ফিতা কেটে এই টিকাদান কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। পরে জেলা প্রশাসক নিজে নির্ধারিত বুথে যেয়ে প্রথম করোনা টিকা গ্রহণ করেন। এরপর বাগেরহাট জেলা পুলিশ সুপার পংকজ চন্দ্র রায়, সিভিল সার্জন ডা. কে এম হুমায়ুন কবিরসহ স্বাস্থ্যকর্মী, প্রশাসনের কর্মকর্তা ও সাংবাদিকরা টিকা নেন।
প্রথম ধাপের এই টিকা পাবেন সম্মুখসারির করোনা যোদ্ধারা। তারমধ্যে রয়েছেন স্বাস্থ্যকর্মী, প্রশাসনের কর্মচারি, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য, গনমাধ্যমকর্মী ও মুক্তিযোদ্ধারা। আর যাদের বয়স ৫৫ বছরের উর্দ্ধে তারাই প্রথমধাপে টিকা নিতে পারবেন। সরকারের দেয়া ওয়েবসাইটে আবেদনের পর নিবন্ধিতরা নির্ধারিত তারিখে নির্দিষ্ট বুথে যেয়ে করোনা ভাইরাসের টিকা গ্রহণ করবেন।
বাগেরহাট জেলার ১১০টি বুথে প্রথম দিনে এক হাজার জনকে টিকা দেয়া হবে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ।
২২০ জন টিকা প্রয়োগকারি অভিজ্ঞ স্বাস্থ্যকর্মী এবং ৪৪০ জন সেচ্ছাসেবী এই টিকাদান কর্মসূচিতে সহযোগিতা করছে। বাগেরহাট জেলায় মোট ৪৮ হাজার ডোজ টিকা প্রয়োগ করবে স্বাস্থ্য বিভাগ।
টিকা গ্রহণের পর বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক আ ন ম ফয়জুল হক তার প্রতিক্রিয়ায় বলেন, পৃথিবীতে এতোগুলো দেশের মধ্যে বাংলাদেশ ৫৫তম দেশ হিসেবে আজ ৭ ফেব্রুয়ারি সারাদেশের মত একযোগে টিকা গ্রহণ করতে পারায় প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। প্রথম দিনে আমি, পুলিশ সুপার ও সিভিল সার্জন টিকা গ্রহণ করে টিকাদান কার্যক্রমের উদ্বোধন করেছি। টিকা গ্রহণের পর আমার অন্যরকম মনে হচ্ছে না। আমি স্বাভাবিক আছি। করোনা ভাইরাস থেকে সুরক্ষা পেতে নিবন্ধন করে যতদ্রুত সম্ভব সবাইকে টিকা গ্রহণের আহ্বান জানান এই কর্মকর্তা।
বাগেরহাটের সিভিল সার্জন ডা. কে এম হুমায়ুন কবির বলেন, বাগেরহাট জেলায় প্রথম দিনে এক হাজার জনকে করোনা ভাইরাসের টিকা দেয়া হচ্ছে। এরমধ্যে সদর হাসপাতালে দেড়শ জনকে, পুলিশ হাসপাতালে ৫০ জনকে এবং ৮টি উপজেলায় প্রতিটিতে একশজনকে করে মোট আটশ জনকে টিকা দেয়া হবে। প্রথম দিনেই আমি করোনা প্রাণঘাতি করোনা রোগের বিরুদ্ধে ভ্যাকসিন নিতে পেরে নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করছি।

Related Post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *